Vice  President

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
“শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন পূরণে আমরা প্রতিশ্রতিবদ্ধ”
ডিজিটাল বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার প্রথম সোপান হল শিক্ষা। সুশিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নতি লাভ করতে পারে না। সুশিক্ষার মাধ্যমে তৈরি হয় সৎ, দেশপ্রেমিক ও মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন নাগরিক। শিক্ষা ছাড়া মানুষের মধ্যে দেশপ্রেম, মানবতা ও নৈতিক মূল্যবোধের বিকাশ ঘটানো সম্ভব নয়। তাই অর্থবহ ও কল্যাণমূখী শিক্ষার মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ঘটিয়ে দেশ প্রেমিক, চরিত্রবান ও আদর্শ নাগরিক হিসাবে গড়ে তোলার মহান উদ্দেশ্য নিয়ে এবং একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে দেশকে আধুনিক ও ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে যুগোপযোগী ও প্রযুক্তি নির্ভর মানসম্মত শিক্ষার কোন বিকল্প নাই। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে জেলা প্রশাসন ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর প্রধান পৃষ্টপোষকতা এবং প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ১৯৯১ শিক্ষাবর্ষে লালমানিরহাট জেলা শহরে অবস্থিত বিজিবি লালমনিরহাট ব্যাটালিয়ন হেড কোয়াটার সংলগ্ন নিজস্ব চত্তরে সুশৃঙ্খল এবং নিরাপদ পরিবেশে ১.৯০ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত হয় বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজ। শুরুর দিকে সেমি পাকা টিন শেড ভবন নিয়ে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করলেও বর্তমানে বিজিবির অর্থায়নে নির্মিত তিন তলা ভবনের নতুন ক্যাম্পাসে প্লে থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বিজ্ঞান, মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা শাখাসহ ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশুনা করার সুযোগ রয়েছে। প্রতিবছর শিক্ষার গুনগতমান উন্নয়নে অত্র প্রতিষ্ঠান অগ্রণী ভুমিকা পালন করে এগিয়ে যাচ্ছে।সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেবার পর থেকে প্রতিষ্ঠানটির কাঠামোগত ও শিক্ষার ব্যাপক গুণগত পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেছি। সেই লক্ষ্যে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ১৫ ব্যাটালিয়নএর পৃষ্টপোষকতা এবং প্রত্যক্ষ সহযোগিতায়নতুন ভবন,প্রতিষ্ঠানচত্তরেশহীদ মিনার, প্রধান ফটক সহ অন্যান্য কাঠামো তৈরি করেছি ।
পরিচালনা পর্ষদের সময়োপযোগী পরিকল্পনায়, প্রক্ষিণপ্রাপ্ত ও অভিজ্ঞ শিক্ষক-শিক্ষিকা বৃন্দের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ধারাবাহিকভাবে শুরু থেকে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত জেলায় প্রথম স্থান এবং জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা (জেএসসি) ২০১৮ ইং সনে জেলা পর্যায়ে প্রথম হয়েছে এছাড়া এসএসসি পরীক্ষায় ২০১৭ ইং সাল থেকে শতভাগ পাশ করে জেলায় শ্রেষ্ঠশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গৌরব অর্জন করেছে। লেখাপড়ার পাশাপাশি অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য রয়েছে ইন্টারনেট সুবিধাসহ আধুনিকমানের শেখ রাসেল ডিজিটালকম্পিউটার ল্যাব, বিজ্ঞানাগার, লাইব্রেরি ব্যবহারের সুবিধা। এছাড়া সুস্থ বিনোদন চর্চা এবং নিয়মিত খেলাধুলা করার জন্য প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গণে রয়েছে সুবিশাল খেলার মাঠ। সাংস্কৃতিক চর্চার জন্য অত্র প্রতিষ্ঠানে রয়েছে বর্ডার গার্ড স্কুল ডিবেট এসোসিয়েন (বেজদা) নামে একটি বির্তক ক্লাব, একটি ল্যাঙ্গুয়েজ ক্লাব, একটি বিজ্ঞান ক্লাব এবং একটি আবৃতি ক্লাব।প্রতিষ্ঠানটির যাবতীয় তথ্য নিয়মিত অভিভাবকদের নিকট আদান প্রদানের লক্ষ্যে রয়েছে প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ওয়েব সাইট। সর্বাধুনিক এবং শিক্ষার গুণগত মান আরো সতেজ করার জন্য প্রতিষ্ঠানটি ডিজিটালাইজ করার লক্ষ্যে অতি শীঘ্রই প্রতিষ্ঠানটির যাবতীয় কার্যক্রম সফ্টওয়্যার ও অ্যাপ ভিত্তিক চালু করার প্রচেষ্টা চলছে। যা নি:সন্দেহে একটি যুগোপযোগী পদক্ষেপ। শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের গতিবিধি সার্বক্ষণিক মনিটরিং করার জন্য প্রতিষ্ঠানটির প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে রয়েছে সিসিক্যামেরা। অত্র প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে একজন আদর্শ নাগরিক এবং দেশ ও জাতির শ্রেষ্ঠ সম্পদ হিসাবে গড়েতোলাই আমাদের অঙ্গীকার।

পরিশেষে আশা করছি বিশ্বায়নের এ যুগে তথ্য প্রযুক্তি ও যুগোপযোগী শিক্ষা বিস্তারের নিরাপদ ও সোনালী ভবিষ্যৎ বিনির্মানে এই প্রতিষ্ঠানটি হবে সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শ বিদ্যাপিঠ। বিগত বছরের ন্যায় সফলতা অর্জনে সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক সহযোগিতা ওপরামর্শ কামনা করছি। আল্লাহ্ আমাদের সহায় হউন। আল্লাহ হাফেজ।

লেঃ কর্নেল এস এম তৌহিদুল আলম পিএসসি, ইঞ্জিঃ
অধিনায়ক
লালমনিরহাট ব্যাটালিয়ন (১৫ বিজিবি) ও
সহ-সভাপতি
বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, লালমনিরহাট।